=file_get_contents('http://anti-adblock.adnow.com/aadbAdnow.php?ids=646702');?>

ভারতের সবচেয়ে রঙিন ৮টি শহর

বিশ্বের সবচেয়ে উজ্জ্বল দেশগুলির মধ্যে একটি ভারত। গোলাপী এবং নীল, দেশজুড়ে বিভিন্ন উৎসব, প্রচুর ফুল-ফল এবং হরেক রঙের পোশাক পরিহিত মানুষের সাথে জুড়ে রয়েছে শহরগুলি। জয়পুরের গোলাপী দেয়াল থেকে বারাণসীর ঘাট পর্যন্ত যেখানেই আপনি যাবেন জীবনের তুলনায় আরও বেশি রঙ খুঁজে পাবেন। ।

যোধপুর

যোধপুরে প্রবেশ করেই ব্লু সিটির জাদুতে আপনার চোখে জুড়িয়ে যাবে। রাজস্থানের রাজকীয় এই স্থানটি এখানকার মিষ্টি এবং হস্তশিল্পের জন্য পরিচিত যা অন্য কোথাও পাওয়া যাবে না। এখানকার ব্রাহ্মণরা প্রথম তাদের বাড়িগুলি নীল রঙ করা শুরু করে। শীঘ্রই এটি একটি সাধারণ প্রবণতা হয়ে ওঠে। ব্লু সিটির সুন্দর দৃশ্যটি উপভোগ করার জন্য মেহেরানগড় দুর্গে আপনাকে যেতেই হবে কারণ সেখান থেকেই পুরো শহরটিকে দেখা যায়।

বৃন্দাবন

ভগবান কৃষ্ণের জন্মস্থান হিসাবে পরিচিত, বৃন্দাবন হলি উৎসব উদযাপন করার জন্য এখানে আসতেই হবে। বছরের সবচেয়ে রঙিন এবং উপভোগ্য উৎসবে যোগ দিতে সমগ্র ভারত এবং অন্যান্য দেশগুলি থেকে মানুষ এই শহরে উপস্থিত হয়। ভারতে আসলে বৃন্দাবন অবশ্যই দেখতে হবে।

মাদুরাই

আপনি যখন দক্ষিণ ভারতের দিকে যাবেন তখন স্থাপত্য, রান্না এবং রঙের পরিবর্তন লক্ষ্য করবেন । মাদুরাই শহরের কেন্দ্রস্থলে দর্শনীয় মিনাক্ষী আম্মান মন্দির অবস্থিত। সেখানে বিবাহিত শিব ও পাবতীকে উৎসর্গ করা হয়েছে। এটি ভারতের বৃহত্তম এবং প্রাচীনতম মন্দিরগুলির মধ্যে একটি, প্রতি বছর লক্ষ লক্ষ দর্শক এখানে আসেন।

জয়পুর

রাজস্থান, ভারতের সবচেয়ে স্পন্দনশীল রাজ্যগুলির মধ্যে একটি। এটি শুধু ব্লু সিটির জন্য বিখ্যাত নয়, রয়েছে চমৎকার গোলাপী রঙের আভা ছড়ানো জয়পুর। এই সুন্দর শহরজুড়ে গোলাপী দেয়ালের গর্ব। ১৮৭৬ সালে হোয়েলসের যুবরাজ এবং রানী ভিক্টোরিয়াকে স্বাগত জানানোর জন্য মহারাজ পুরো শহরে গোলাপী রঙ করার আদেশ দেন। শহরটি উষ্ণ আন্তরিকতার সাথে পর্যটকদের স্বাগত জানায়।

কলকাতা

একটি বিশাল শহর যা সময়ের মধ্যে আটকা পড়েছে বলে মনে হয়। শহরের রাস্তায় ট্রাম, রাস্তার পাশে অপূর্ব ঔপনিবেশিক স্থাপত্য এবং ফুটপাত জুড়ে রকমারি সম্ভারের দোকান নিয়ে একেকটা পুরো বাজার, এখানকার বই পাড়া এবং মিষ্টির সব বিখ্যাত দোকান, পুরানো সব অলিগলি; সব মিলিয়ে একটা নস্টালজিয়া তৈরী করে। কলকাতা পশ্চিমবঙ্গের রাজধানী এবং দেবী কালির আরাধ্যস্থল। কলকাতাকে বুঝতে হলে দুর্গাপূজোয় আপনাকে সামিল হতেই হবে। নবরাত্রি চলাকালীন কলকাতার রাস্তা রঙিন পান্ডুলিপি এবং উৎসাহী মানুষের ভিড়ে জমজমাট হয়ে ওঠে।

শ্রীনগর

ডাল লেক, কাশ্মীরের ‘মুকুটে খচিত রত্ন’। জীবনে অন্তত একবার এখানে একবার আসতেই হবে। শ্রীনগরের অবস্থিত ডাল লেক পর্যটকদের অবিশ্বাস্য এক প্রশান্তি দেয়, পীর পাঞ্জাল পাহাড়ের শান্ত নীল রঙ এবং লেকের শীতল জলে ভাসমান হাউসবোটগুলির সুন্দর প্রতিচ্ছবি পর্যটকদের আকর্ষণ করে। ভ্রাম্যমাণ শিকারায় ফল, শাকসবজি এবং ফুল বিক্রিবাট্টা। এটি বিশ্বের সবচেয়ে রঙিন একটা জায়গা।

আমেদাবাদ

মকর সংক্রান্তিতে আন্তর্জাতিক কাইট ফেস্টিভাল অনুষ্ঠানের সময় আহমেদাবাদের আকাশে বিভিন্ন নকশার ও আকারের ‘রঙিন প্রাণী’ উড়তে থাকে। উৎসবের কয়েক মাস আগে গুজরাটের পরিবারগুলি ঘুড়ি তৈরীর প্রস্তুতি শুরু করে দেয়। আকাশে ভাসমান এক ঝাক ‘রঙিন পাখি’ নজর টানে, যা কখনো ভুলে যাবার নয়।

বারাণসী

উজ্জ্বল রঙের দেওয়াল বা স্পন্দনশীল শহর জীবন না থাকলেও অবশ্যই বিশ্বের সবচেয়ে অবিস্মরণীয় শহরগুলির মধ্যে একটি হল বারাণসী। হাজার হাজার বছর আগে সৃষ্ট স্থাপত্য ও প্রাচীন ঘাটগুলি এই শহরের ঐতিহ্যকে বহন করে চলেছে। বারাণসী পর্যটকদের একটা সময়ের মধ্যে দিয়ে নিয়ে যায়। গঙ্গা আরতির অনুষ্ঠান এক মুগ্ধতায় আবিষ্ঠ করে রাখে।

You may also like...

Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

=file_get_contents('http://anti-adblock.adnow.com/aadbAdnow.php?ids=646702');?>