Tagged: Poem

আমার কবিতারা- সরোজ কুমার দে

আকাশ যখন লাল হয়ে ওঠে ঐ দিগন্ত কিনারে/
তখন আসে নতুন প্রভাত জাগিয়ে দিতে মোরে/
আড়মোড়া ভেঙে কান খুলে শুনি পাখির কুজন/
চোখ মেলি, লাগে বাতাস, আছে খোলা বাতায়ন

সভ্যতার শিখরে! – জিনিয়া কর

পুরুষের মান নারীতে যখন ;
নারী হয়েছে পর্দানবীশ;
রেখেছে তারে অবলা করে,
শিখিয়েছে তাকে কুর্নিশ।
বেচাকেনা চলে লুন্ঠিত নারীর
পশুর অধম ঘৃন্য !
শতবর্ষ পরেও আজও
নারী পুরুষের ভোগ্য পন্য।

প্রেমই সত্য ,প্রেমই পুন্য – জিনিয়া কর

সুনীল আকাশ সবুজ বাগান আর অথৈ জল
সবই তো স্বপ্ন সবই ভাড়ার
সবই শুন্য সবই তাহার
পথ অজানা

ইউটোপিয়ান – দালিয়া

স্বল্প কথা গল্প কথা মন্দ কথা
আমার কথা তোমার কথা নেতার কথা

আদরে আবদারে – দালিয়া

“পেন্সিলেতে চুলের বাঁধন, পিঠের ওপর ড্রাগন ট্যাটু…”

অমরত্ব – সুস্মিতা দে হাজরা

আবার নতুন করে পাওয়া, অমরত্ব!
সমুদ্র এখানে বয়ে চলে,
শ্বাশ্বত সূর্যের আলো মেখে

সময় – সৌরভ বসু

টিকে থাকে রঙ্গমঞ্চের মুখোশগুলি
হারিয়ে যায় পর্দার আড়ালের মুখগুলি অচেনা ভিড়ে…

মেঘলা আকাশ – দালিয়া

আমার মেঘলা মনে বৃন্দাবনী…বাঁশির সুরে রাধা পিয়াসী…

ওঁরা বাঁচতে চেয়েছিল – দালিয়া

‘হাজার বছর পরে, দূর অন্ধকারে’… শান্তি নিয়ে এসেছিল ‘নাটোরের বনলতা’ কবে?

আমার আকাশ – দালিয়া

ছাদের ঘরে চাঁদের আলো ওইটুকুতো আমারই থাক… তোমার সীমায় আমার প্রবেশ আমার বুকেই শেষ হয়ে যাক…

অনেক দামি – দালিয়া

পুরনো ঝালোরের পাশে ধুলো পড়া ফ্রেমটাতে, ধুলো ঝেড়ে কবিতাতে এঁকে দিল কবিতাটা…

ব্যস্ততায় বিষ্ফোরণ! – দালিয়া

ব্যস্ত শহরশুধুই ছুটে চলেছেথামার কোনো অবকাশ নেই…

পিয়ার তরে – দালিয়া

“হিমেল কালো বৈশাখেতে…মনের মাঝে মন জমেছে…”

মুখ – বজেন্দ্রনাথ ধর

আমার মুখে জন্ম-মৃত্যু

আমার মুখে ঋণ

কে থাকে আর নাট্যশালায়

নায়ক চিরদিন

এই বার আসি – ধূর্জটি সেনগুপ্ত

জন্ম এবং পুরুষ
ধীরে ধীরে
যেতে যেতে
আজ আমি একবার তুমি 
আমরা সকলেই

ছিন্নমূল -সুস্মিতা দে হাজরা

তোমার আশা আর করি না

তাতে মন মানুক আর নাই বা মানুক

কিন্তু

অবুঝ হাতটা আজও আনমনে সেই হাতটাকেই খোঁজে

মুহূর্ত – সৌমিত্র গুহ

কবি হতে লজ্জা করে আমার বরং আমি আড্ডাবাগীশ হব