এআইআর(AIR) ন্যাশনাল চ্যানেল সহ ৫ আঞ্চলিক রেডিও চ্যানেল বন্ধ করে দিল প্রসার ভারতী

এক বছর ধরে আলোচনার পর, পাবলিক ব্রডকাস্টার প্রসার ভারতী অবশেষে “যুক্তিসঙ্গত” এবং কার্যক্ষম খরচ কাটাতে ন্যাশনাল চ্যানেল অফ অল ইন্ডিয়া রেডিও (এআইআর) বন্ধ করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

৩ জানুয়ারি এআইআর ডিরেক্টর জেনারেলের জারি করা নির্দেশ অনুসারে প্রসার ভারতী ২৪ ডিসেম্বরে এআইআর পরিচালককে এই সিদ্ধান্তের কথা জানান।

তিরুবনন্তপুরম, শীলং, আহমেদাবাদ, লখনৌ এবং হায়দ্রাবাদে সম্প্রতি ব্রডকাস্টিং ও মাল্টি মিডিয়া (আরএবিএম) এর পাঁচটি আঞ্চলিক একাডেমিকে অবিলম্বে বন্ধ করার সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়েছে।

প্রসার ভারতী সূত্রে খবর, “প্রায় এক বছরের জন্য জাতীয় চ্যানেল বন্ধ করার মত সিদ্ধান্তের অপেক্ষায় ছিল। জাতীয় চ্যানেলের জন্য কাজ করেছেন এমন বেশিরভাগ সিনিয়র কর্মকর্তা অবসর গ্রহণ করেছেন। শ্রোতার সংখ্যাও অনেক কম।”

এটি আসলে ডিজিটাইজেশান প্রোগ্রামের একটি অংশ। শ্রোতার সংখ্যা বেশী, এমন চ্যানেলগুলির আধুনিকীকরণ করা এবং তাদের মোবাইল অ্যাপ্লিকেশনের মাধ্যমে আরও বেশি শ্রোতাকে নাগালের মধ্যে নিয়ে আসাই মূল লক্ষ্য।

চ্যানেলগুলি বন্ধ করার সিদ্ধান্তের পিছনে প্রধান কারণ হল তাদের দুর্বল ট্রান্সমিটার। একমাত্র নাগপুরে প্রায় এক মেগাওয়াট, যা বড় অংশের শ্রোতাদের জন্য যথেষ্ঠ নয়। ডিজিটাল রেডিওর যুগে এই প্রযুক্তি যথেষ্ট নয়।

কেন ভাল ট্রান্সমিটার ব্যবহার করা হয় নি ? প্রশ্নের জবাবে প্রসার ভারতীর পক্ষে জানানো হয়, শ্রোতার অপ্রতুলতার কারণে নতুন করে বিনিয়োগের কোন যৌক্তিকতা ছিল না। এখন এআইআর-এর কিছু অপারেশন আউটসোর্স করার চেষ্টা চলছে। উদাহরণস্বরূপ, এআইআর-এর ওয়েবসাইটটির দেখাশোনার দ্বায়িত্ব বেসরকারী প্রতিষ্ঠানকে দেওয়া হয়েছে   ।

২০১৩ সালের জুলাই থেকে জাতীয় চ্যানেলের ফেসবুক পেজটির কোন কার্যকারিতা নেই।

একটি সময় ছিল যখন প্রজাতন্ত্র দিবসের প্রাক্কালে একমাত্র এই জাতীয় রেডিও চ্যানেলে সর্বপ্রথম রাষ্ট্রপতির ভাষণ শোনানো হয়। যদিও এখন এফএম চ্যানেল সহ এয়ারের সমস্ত চ্যানেলেই রাষ্ট্রপতির ভাষণ সম্প্রচারিত হয়।

এটি ছিল একমাত্র রেডিও চ্যানেল যা প্রতিদিন বিকেল ৬ঃ৫০ এবং সকাল ৬ঃ১২ মিনিটের সময়ের মধ্যে সংবাদ সম্প্রচার করত।

৩ জানুয়ারির আদেশ অনুসারে, তোড়াপুর ও নাগপুর সহ অন্যান্য কেন্দ্রগুলিতে কর্মরত কর্মচারীদের প্রয়োজন অনুযায়ী অন্যত্র নিয়াগ করা হবে।

You may also like...

Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.